কাঁচা আমের উপকারিতা - Amer Upokarita
কাঁচা আমের উপকারিতা - Amer Upokarita


কাঁচা আমের উপকারিতা

আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরনের ফল পাওয়া যায় । আর সেই সব ফলের রাজা হলো আম । এটি একটি গ্রীষ্মকালীন ফল । গ্রীষ্মকালের গরমের সঙ্গী হলো আম । প্রচন্ড গরমের মধ্যে এক টুকরো আম খেলে শরীরে প্রশান্তি চলে আসে। আম আমরা কম বেশি সবাই খাই | আমরা কি জানি আম খেলে কি কি উপকার হয় ? চলুন আজ জেনে নেই আমের উপকারিতা গুলি:-

→দাঁত, নখ, চুল মজবুত করতে সাহায্য করে:-

আমে প্রচুর পরিমাণে খনিজ লবণ রয়েছে, যা আমাদের দাঁত, নখ, চুল মজবুত করতে সাহায্য করে । শুধু তাই নয় এটি আমাদের হজম শক্তি বৃদ্ধি করতেও সাহায্য করে ।

→বুক জ্বালাপোড়া কমাতে সাহায্য করে:-

আপনার কি বুক জ্বালাপোড়ার সমস্যা রয়েছে, যদি থাকে তাহলে আম ই হতে পারে আপনার বুক জ্বালাপোড়ার ওষুধ । কারণ আমে থাকা খনিজ উপাদান বুক জ্বালাপোড়া কমাতে সাহায্য করে । তাই যখনি আপনার বুক জ্বালাপোড়া করবে তখনি একটু টুকরো কাঁচা আম খেয়ে নিবেন । দেখবেন কিছুক্ষন পরেই আপনার বুক জ্বালাপোড়া কমতে শুরু করেছে ।

→বমি বমি ভাব দূর করে:-

সকালে ঘুম থেকে উঠে অনেকেরই বমি বমি ভাবের সমস্যা দেখা দেয় । এই সমস্যাটা বেশি হয় গর্ভবতী মায়েদের । আর এই সমস্যার সমাধান করতে পারে কাঁচা আম । তাই যখনি আপনার বমি বমি ভাব দেখা দিবে তখনি একটু টুকরো কাঁচা আম খেয়ে নিবেন । দেখবেন কিছুক্ষন পরেই আপনার বমি বমি ভাব কমতে শুরু করেছে ।

→যকৃত ভালো রাখতে সাহায্য করে:-

কাঁচা আম যকৃত ভালো রাখতে সাহায্য করে । কাঁচা আম খেলে পিত্তরস বৃদ্ধি পায় । আর এই পিত্তরস যকৃত ভালো রাখতে এবং যকৃতের জীবাণু ধ্বংস করতে সাহায্য করে । কাঁচা আমে রয়েছে প্ৰচুর পরিমাণে আয়রন যা আমাদের যকৃত সুরক্ষিত রাখতে সাহায্য করে । যাদের যকৃতের সমস্যা রয়েছে তারা প্রতিদিন কাঁচা আম খেতে পারেন ।

→ঘামাচি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে:-

গরমের দিনের সবচেয়ে বড় শত্রু হলো ঘামাচি । গরমের সময় ঘামাচি আমাদের অনেক জ্বালাতন করে । ঘামাচির সাথে যুদ্ধ করার সবচেয়ে ভালো অস্ত্র হলো কাঁচা আম । কারণ কাঁচা আম ঘামাচি প্রতিরোধ করতে সক্ষম । কাঁচা আমে এমন অনেক উপাদান রয়েছে যা আমাদের ত্বকে সানস্ট্রোক হতে বাধা দেয় । 

কাঁচা আমের উপকারিতা - Amer Upokarita
কাঁচা আমের উপকারিতা - Amer Upokarita


→হজমশক্তি বাড়াতে সহায়তা করে:-

কাঁচা আম আমাদের হজমশক্তি বাড়াতে সহায়তা করে। যাদের বদহজমের সমস্যা রয়েছে তারা কাঁচা আম খেতে পারেন । কাঁচা আমে এমন কিছু উপাদান রয়েছে  যা আমাদের পেটের খাবার দ্রুত হজম করতে সাহায্য করে । এছাড়া কোষ্ঠকাঠিন্যর সমস্যা থাকলে তাও দূর করে । যাদের মুখে রুচি নেই তারা কাঁচা আম  খেতে পারেন । কারণ কাঁচা আম খেলে মুখের রুচি বাড়ে । 

→রক্তের সমস্যা দুর করতে সাহায্য করে:-

কাঁচা আম রক্তের সমস্যা দুর করতে এবং রক্ত ভালো রাখতে সাহায্য করে । কাঁচা আমে একটি উপাদান রয়েছে যার নাম আয়রন বা লৌহ । এটি রক্তশূন্যতা, রক্তক্ষরণের সমস্যা, ব্লাড ক্যান্সার ও টিউবারকোলোসিসের মতো সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে । তাই যাদের রক্তে সমস্যা রয়েছে তারা প্রতিদিন কাঁচা আম খেতে পারেন ।

→শরীরের লবণের ঘাটতি পূরণ করে:-

গরমের দিনের আরেকটি বড় সমস্যা হলো ঘাম । আর এই ঘামের সাথে বের হয়ে যায় সোডিয়াম ক্লোরাইড ও লৌহ । এক গ্লাস কাঁচা আমের জুসই এই ঘাটতি পূরণ করতে পারে । যাদের অতিরিক্ত ঘাম হয় তারা গরমের সময় এক গ্লাস কাঁচা আমের জুস পান করুন । এতে আপনার শরীরের লবণের ঘাটতি পূরণ হয়ে যাবে ।

→ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়:-

কাঁচা আম আমাদের ত্বকের জন্য অনেক উপকারী। কাঁচা আম আমাদের ত্বকের সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে । কাঁচা আম একটি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল, আর আমরা সবাই জানি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ভিটামিন সি ত্বকের লাবণ্য ও উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে সাহায্য করে। তাই যারা ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে চান তারা প্রতিদিন কাঁচা আম খেতে পারেন ।

→রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়:-

কাঁচা আমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যা আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলে এবং বিভিন্ন ধরনের  রোগ থেকে সুরক্ষা দেয়। 


কাঁচা আমের উপকারিতা - Amer Upokarita



Photo Credit- www.doschooling.com ( my own capture)

Post a Comment

Previous Post Next Post